এইমাত্র পাওয়া । বিএনপির কাণ্ড দেখে লজ্জা হয় – মন্তব্য এই কেন্দ্রীয় নেতার


আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক হাছান মাহমুদ বলেছেন, বিএনপির নয়াপল্টন অফিস এবং গুলশানে বেগম খালেদা জিয়ার কার্যালয় মনোনয়ন বাণিজ্যের হাটে রূপান্তরিত হয়েছে। তাদের অফিস এখন মনোনয়ন বাণিজ্যের হাট। শোনা যাচ্ছে আজকালের মধ্যে তারা মনোনয়ন চূড়ান্ত করবে।

বৃহস্পতিবার (৬ ডিসেম্বর) জাতীয় প্রেস ক্লাবের কনফারেন্স লাউঞ্জে হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর ৫৫তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি এ মন্তব্য করেন।

হাছান বলেন, ৮০০ জনকে নমিনেশন দেয়ার পর তারা ঋণখেলাপিকে নমিনেশন দিয়েছে, নয় দশ বছরের দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিকেও মনোনয়ন দিয়েছেন। এখন শোনা যাচ্ছে চূড়ান্ত চিঠি পাওয়ার ক্ষেত্রে যারা যত বেশি দিতে পারবে তাদেরকে চূড়ান্ত চিঠি দেয়া হবে। বিএনপির লজ্জা হচ্ছে কি-না জানি না, তবে এ কাণ্ড দেখে আমার লজ্জা হয়।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের সংবিধানে কেউ যদি দুই বছরের দণ্ডপ্রাপ্ত হয়, তবে সে নির্বাচন করতে পারবেন না। ঐক্যফ্রন্টের নেতা ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে ১৯৭২ সালে এ সংবিধান রচিত হয়েছে। তারাও এটা জানেন, ড. কামাল হোসেন সাহেবও এটা জানেন।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, মওদুদ সাহেব এমন একজন আইনজীবী, তিনি মৃত মানুষের পাওয়ার অব অ্যাটর্নি দাখিল করে গুলশানের বাড়ির মালিক হয়েছেন। দেশে এমন ব্যারিস্টার আগে দেখা যায়নি। যিনি মৃত মানুষের পাওয়ার অব অ্যাটর্নি জোগাড় করতে পারেন।

আওয়ামী লীগের নেতা কর্মীদের অনুরোধ জানিয়ে তিনি বলেন, নির্বাচনকে সবসময় সিরিয়াসলি নিতে হয়। আমরা যদি নির্বাচনকে সিরিয়াসলি না নেই তবে সেটি ভুল হবে। কারণ প্রতিপক্ষকে দুর্বল মনে করা হল নিজের প্রস্তুতি ভালো না হওয়া। এজন্য আমি অনুরোধ করবো নির্বাচনকে যেন আমরা সিরিয়াসলি নেই।

সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগ নেতা চিত্তরঞ্জন দাস, অ্যাডভোকেট বলরাম পোদ্দার, বিএফইউএজের সভাপতি মোল্লা জালাল, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক অরুণ সরকার রানা প্রমুখ।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*